logo
logo
news image

নির্বাচন ঘিরে কোনো নৈরাজ্য ও সহিংসতা হলে কঠোর ব্যবস্থা

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে কোনো নৈরাজ্য ও সহিংসতা হলে তা কঠোর ও কঠিনভাবে মোকাবেলার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন ঘিরে কোনো সহিংসতা বরদাশত করবে না পুলিশ। এ ছাড়া ২০১৩-১৪ সালের মতো আগুন-সন্ত্রাস যাতে সৃষ্টি না হয়- সে ব্যাপারে সতর্ক থাকার কথা বলা হয়। এদিকে শিগগিরই সারাদেশে অবৈধ মোটরসাইকেলের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত হয়। অতীতে দুর্বৃত্তরা নিবন্ধনহীন মোটরসাইকেল ব্যবহার করেই নাশকতার ঘটনা ঘটায়। গতকাল রোববার পুলিশ সদর দপ্তরে অর্ধবার্ষিকী অপরাধ পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পুলিশ মহাপরিদর্শক ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী এতে সভাপতিত্ব করেন। বৈঠকে সব পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি, ৬৪ জেলার পুলিশ সুপার, ঢাকার বিভিন্ন ইউনিটের প্রধানসহ সারাদেশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। নির্বাচনের আগে এ বৈঠককে গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হচ্ছে। মাঠপর্যায়ের করণীয় নিয়ে সেখানে আলোচনা হয়। দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র সমকালকে এসব তথ্য জানান।

বৈঠকে আইজিপি বলেছেন, সবার সহযোগিতায় আমরা একটি সুন্দর নির্বাচন আয়োজনে সক্ষম হব। কাউকে নির্বাচন ঘিরে অরাজকতা সৃষ্টির সুযোগ দেওয়া হবে না। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে মাঠ পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন আইজিপি।

জানা গেছে, নির্বাচনের আগে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। এ ছাড়া লাইসেন্স করা একজনের অস্ত্র যাতে অন্য কেউ ব্যবহার করতে না পারে সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। শিগগিরই জোরালোভাবে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান চালানোর কথা বলা হয়।

এ ছাড়া দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঠেকাতে একটি চক্র সারাদেশে নৈরাজ্য চালিয়েছে। এবার যাতে এ ধরনের কোনো নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি তৈরি করতে না পারে সে ব্যাপারে আগে থেকে সতর্ক পদক্ষেপ নিতে হবে। ওই সময়ের ঘটনায় যেসব আসামি এখনও গ্রেফতার হয়নি তাদের সমন্বিত তালিকা করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়। এ ছাড়া নতুনভাবে কেউ ষড়যন্ত্র করছে কি-না, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।


কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top