logo
logo
news image

বাংলাদেশকে জানতে হলে জাতির পিতা সম্পর্কে জানতে হবে

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী  জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, বাংলাদেশের মুল ভিত্তি বাংলা ভাষা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নেতৃত্বে ১৯৪৮ সালেন ১১ মার্চ বাংলা ভাষা আন্দোলন শুরু হযেছিল। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ একই বৃন্তে দুটি ফুল। একটি থেকে আরেকটিকে পৃথক করা যাবে না।বাংলাদেশকে জানতে হলে জাতির পিতা সম্পর্কে জানতে হবে। একজন বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলেই আমারা স্বাধীনতা পেয়েছিলাম। বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির জন্য একটি জাতি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করেছেন।

আজ ২১ শে মার্চ ঢাকায় বিটিআরসি সম্মেলন কক্ষে ২৫ শে মার্চ গণহত্যা দিবস এবং ২৬ শে মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৯ উদযাপন উপলক্ষে বিটিআরটি আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর মূল শক্তি ছিলো এ দেশের মানুষ। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে  বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানানোর ঘৃন্য ষঢ়যন্ত্র করা হয়েছিল। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ , এই ২১ বছর বাংলাদেশকে পশ্চাৎপদতার দিকে দাবিত করা হয়েছিল।রাজাকারদের গাড়ীতে পতাকা দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রতি অবমাননা করা হয়েছে। ধর্মকে নিয়ে নির্লজ্জ রাজনীতি করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ছিলেন দূরদৃষ্টি সম্পন্ন একজন মানুষ।যুদ্ধের ধ্বংশস্তুপের ওপর দাঁড়িয়ে প্রাথমিক শিক্ষা জাতীয় করণ করেছিলেন।

মাত্র ৯ মাসে জাতীয় সংবিধান উপহার দিয়েছিলেন। বহি:বিশ্বের সাথে টেলিযোগাযোগ সম্পসারণে ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন বেনবুনিয়ায় ভু-উপগ্রহ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।  তিনি বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় বিপ্লবের পরিকল্পনার বিভিন্ন দিকে তুলে ধরে বলেন, দ্বিতীয় বিপ্লব গ্রহণ করলে বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়ে যেতো।রাষ্ট্রীয় সম্পদে দেশের সকল মানুষের সম অংশিদারিত্ব নিশ্চিত হওয়ার মধ্য দিয়ে সম্পদের বৈষম্য হ্রাস পেতে, উল্লেখ করেন টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী।

মন্ত্রী স্বাধীননতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুসহ মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান স্মরণ করে বলেন, বঙ্গবন্ধু এ দেশের স্বাধীকার প্রতিষ্ঠায় পাকিস্তানের ২৩ বছরের শাসনের ১৩ বছর জেল খেটেছেন। এদেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় মৃত্যুর মুখোমুখী দাঁড়িয়েও তিনি বলেছিলেন, আামি বাঙালি, আমি মুসলমান। মুসলমান একবাই মরে বার বার মরে না উল্লেখ করেন তিনি।

মন্ত্রী  গত দশ বছরে বাংলাদেশ এবং পাকিস্তানের তুলনা মূলক অর্থনৈতিক সূচক তুলে ধরে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্ন্য়নে বিশ্বের বিস্ময়। গত দশ বছরে দেশে মাথা পিছু আয় ৫৫৬ ডলার থেকে ১৯০৯ ডলারে উন্নীত হয়েছে। আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশ কোথায় যাবে তা কল্পনাও করতে পারি না।  দেশের টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রণকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে মন্ত্রী বিটিআরসিকে আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন যত ডিজিটাল অগ্রগতি হবে ডিজিটাল অপরাধও তার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়াবে। জনগণকে ডিজিটাল অপরাধ থেকে নিরাপদ রাখার সর্বোচ্চ প্রস্তুতি গহণের লক্ষ্যে অতিতের মেধা ও দক্ষতার আমুল পরিবর্তন সাধন করতে হবে। তিনি বলেন ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্ম শতবার্ষিকী এবং ২০২১ সাল স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী । এই দুটি বছর জাতির উৎসবের বছর উদযাপনের বছর।এই সময়ের জন্য তিনি যথাযথ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণও কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের উপযোগী হিসেবে নিজেদের তৈরি করার প্রয়োজনীয়তার ওপর মন্ত্রী গুরুত্বারোপ করেন।

অনুষ্ঠানে বিটিআরসি চেয়ারম্যান মো: জহুরুল হক এবং কমিশন সদস্য আমিনুর রহমান অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top